বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য এদেশে হবেই, পারলে ঠেকাইয়েন: নিক্সন চৌধুরী

ফরিদপুর ৪ আসনের সংসদ সদস্য ও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাকে আফগানিস্তান-পাকিস্তান হতে দেওয়া যাবে না। কোনো জ’ঙ্গিবা’দী কার্যক্রম এদেশে চলবে না। বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিল বলেই আমি আজ এমপি, আপনি বড় অফিসার। সেই দেশে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য হবেই। কেউ ঠেকাতে পারবে না।

তিনি এ সময় হেফাজতে ইসলামের নেতা মামুনুল হকের উদ্দেশে বলেন, আপনি আন্দোলন করেন, রাজনীতি করেন কাদের নিয়ে। আমাদের এতিম বাচ্চাদের নিয়ে। আমরা আমাদের বাচ্চাদের মাদ্রাসায় পাঠাই কোরআন শিক্ষা নিতে আর আপনি তাদের নিয়ে রাজনীতি করেন।

এমপি নিক্সন এ সময় হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, যখন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে উন্নয়নের জোয়ার বইছে, ঠিক সেই সময়ে মামুনুল হকরা ভাস্কর্যের নামে দেশের পরিবেশ অ’শান্ত করতে উঠেপড়ে লেগেছে। এর কারণ কী? কারা এর পিছনে? কি তাদের উদ্দেশ্য? তারা পাকিস্তানের টাকায় দেশকে অস্থিতিশীল করছে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য এদেশে হবেই, পারলে ঠেকাইয়েন। পারবেন তো রাতের অন্ধকারে ঢিল মারতে।

যুবলীগ সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে নিক্সন চৌধুরী বলেন, যারা যুবলীগ নিয়ে গ্রুপিং করেন তারা সাবধান হয়ে যান। আপনাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিগত দিনে, এমপির সুপারিশ, নেতার সুপারিশ আর টাকার জোরে যুবলীগের পদ পেয়েছেন। আগামীতে আর তা হতে দেয়া হবে না। যুবলীগের পদ পাবে ত্যাগী, ভদ্র, মা’দ’ক বি’রো’ধী শিক্ষিত যুবকরা। বিএনপি জামায়াতের কোনো স্থান যুবলীগে হবে না।

এমপি নিক্সন চৌধুরী আজ রোববার বিকেলে ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার রুপাপাত ইউনিয়নের কালিনগর ময়রার মাঠে স’ন্ত্রা’স, জ’ঙ্গিবা’দ ও সা’ম্প্রদা’য়িকতা বি’রো’ধী সমাবেশ, গণ জামায়েত ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব কথা বলেন।

বামনচন্দ্র উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহাজাহান শেখের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিল্পব মোস্তাফিজ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মো. মাজাহারুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক শাহাদত হোসেন, বাংলাদেশ আইন সমিতির সভাপতি ব্যারিস্টার সাজ্জাদ হোসেন, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক একে এম আজিম, উত্তর মহানগর আ’লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মিজানুল ইসলাম মিজু, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য চৈতী বিশ্বাস প্রমুখ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*