ভয়ঙ্কর ‘মানব খুলির দুর্গ’ ঘিরে ফের রহস্য

মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটির অদূরে অ্যাজটেক সভ্যতার ‘মানব খুলির দুর্গ’ থেকে আরও ১১৯টি মাথার খুলি উদ্ধার করেছে মেক্সিকোর প্রত্নতাত্ত্বিকগণ। মেক্সিকোর ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব অ্যানথ্রোপোলজি অ্যান্ড হিস্ট্রি (আইএনএএইচ) এর তথ্য অনুযায়ী, এখান থেকে এর আগে আরও প্রায় ৪৮৪টি খুলি উদ্ধার করা হয়েছিল।

মেক্সিকো সিটির অন্তর্গত টেম্পলো মেয়রের অদূরে অবস্থিত ‘হুয়ে জম্প্যান্টলি’র পূর্ব দিকে এই খুলিগুলো পাওয়া যায়। প্রাচীন টেনোচিটলান শহরের অন্তর্গত ‘হুয়ে জম্প্যান্টলি’ শহরেই সবচেয়ে বেশি মানুষ তাদের জীবন বিসর্জন দিয়েছিল। প্রত্নতাত্ত্বিকরা এখানে বিভিন্ন পর্যায়ের ২টি দুর্গ চিহ্নিত করেছেন। এখানকার খুলিগুলো ১৪৮৬ সাল থেকে ১৫০২ সালের বলে ধারণা করা হচ্ছে।

খুলিগুলো রাস্তার স্তর থেকে প্রায় সাড়ে তিন গজ নীচে পাওয়া গেছে। উদ্ধার হওয়া খুলির মধ্যে বেশ কিছু মহিলা ও শিশুদের। প্রত্নতাত্ত্বিকগণ মস্তকগুলির বিশাল স্তূপ দেখতে পেয়েছিলেন যা প্রাক-হিস্পানিক শহরের শক্তি এবং প্রতিপত্তির নিদর্শন।

১৫১৯ সালে স্পেনের নাবিক হার্নান কর্টেস আক্রমণ চালিয়ে অ্যাজটেক সম্রাটকে উৎখাত করে টেনোকটিটলান দখল করে নিয়েছিলেন।২০১৫ সালে এই ‘মানব খুলির দুর্গ’টি আবিষ্কৃত হওয়ার পর থেকে একের পর এক অ্যাজটেক শহরের ভয়ঙ্কর রহস্য উৎঘাটিত হচ্ছে। সূত্র: ফক্স নিউজ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*