কারা'গারেই মোবাইলে প্রেম-বিয়ে, অতঃপর পাঁচ বছর কারা'গারে একান্তে তুষারকে স'ঙ্গ দেন সুইটি

কারা'গারে ব'ন্দি থাকা হলমা'র্ক গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) তুষার আহম'দের স'ঙ্গে দীর্ঘসময় এক নারীর সময় কা’টা’নোর একটি সিসিটিভি ফুটেজ সম্প্র’তি প্র’কাশ পেয়েছে। গাজীপুরের কাশিমপুর কা’রাগারে এবারই প্রথম নয়, ওই নারী গত ৫ বছর ধরে তুষারকে একান্তে স'ঙ্গ দিয়ে আসছিলেন।

জানা গেছে, তুষারকে স’'ঙ্গ দেওয়া ওই নারীর নাম আসমা শেখ সুইটি। রাজধানীর সবুজবাগের নিজ বাসায় মা ও ছেলেকে নিয়ে বসবাস করেন। তার গ্রামের বাড়ি ফেনীর ছাগলনাইয়ায়। তার বাবা গ্রামের বাড়িতে থাকেন। সুইটি পেশায় একজন ব্যবসায়ী, যদিও আগে বেসরকারি একটি ব্যাংকে কর্মর'ত ছিলেন। বর্তমানে অনলাইন ব্যবসা করেছেন। হাতিরঝিল সংল'গ্ন পুলিশ প্লাজা কনকর্ড শপিং সেন্টারের ৪র্থ তলায় রয়েছে তার একটি ফ্যাশন হাউস। বিউটি বাজ নামের এই ফ্যাশন হাউসটি ২০১৯ সালে চালু করেন তিনি।

কা’রাব’ন্দি তুষারের স’'ঙ্গে মোবাইলে তার পরিচয়। পরবর্তীতে মোবাইলেই বিয়ে করেন তারা। সূত্র জানিয়েছে, আর্থিক সুযোগ-সুবিধার বিনিময়ে কা’রাগা’রের ঊর্ধ্বতন একাধিক কর্মক'র্তার সহযোগিতা নিয়ে কা’রাগা’রেই তারা একা’ন্তে ব’হুবার মিলিত হওয়ার সুযোগ পেতেন। তুষারের স'ঙ্গে আগে নিয়মিত কাশিমপুর কা’রাগা’রে সা’ক্ষাতে যেতেন সুইটি। ক’রো’নার কা’রণে সম্প্রতি তুলনামূলক কম যেতেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কারা' ক'র্তৃপক্ষের ত'দন্ত কমিটির কাছে সুইটিকে নিজের স্ত্রী বলে দাবি করেছেন তুষার। তুষারের দাবি, বিয়ের আগে সুইটির স'ঙ্গে কা’রাগার থেকে মোবাইল ফোনে নিয়মিত কথা বলতেন তিনি। ফোনেই সুইটির স'ঙ্গে প্রে’মের সম্প’র্ক গড়ে ওঠে তুষারের। পরবর্তীতে মুঠোফোনে তাদের বিয়ে হয়। তাদের বিয়ের বি'ষয়টি নিশ্চিত 'হতে একাধিক কা’রাব’ন্দির সাক্ষাৎকার নিয়েছে ত'দন্ত কমিটি।

এদিকে ‘কা’রা’ব’ন্দি তুষারের প্রথম পক্ষে স্ত্রী এবং দুই সন্তান রয়েছে। ২০১২ সালে র‌্যাব'ের হাতে গ্রে'’ফ’তারের পর তুষার আহমেদ কা’রাগারে থাকায় তার প্রথম স্ত্রী নাজনিন সুলতানা মিষ্টি দুই সন্তানকে নিয়ে মালয়েশিয়ায় চলে যান। প্রথম স্ত্রী এবং তার পরিবারের সদস্যরা তুষারের স'ঙ্গে সুইটির বিয়ের বি'ষয়টি জানেন না বলে জানা গেছে। সম্প্রতি গাজীপুরের কাশিমপুর কা’রাগা’রে হলমা'র্ক কে’লেঙ্কা’রির সা’জা’প্রা'প্ত ব’ন্দি তুষারের স'ঙ্গে এক নারীর দী’র্ঘ সময় কা’টা’নোর সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশ পায়।

ওই সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, গত ৬ জানুয়ারি গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কা’রাগা’রের পার্ট-১ এ আ’টক হলমা'র্ক কেলেঙ্কারির হোতা তানভীরের ভায়রা কোম্পানির জিএম তুষারের স'ঙ্গে এক নারী সাক্ষাৎ করেন। ডেপুটি জে'লার সাকলাইন সাক্ষাতের অনুমতির জন্য ১২টা ২২ মিনিটে সুপারের রুমে প্রবেশ করেন। সুপারের রুম থেকে অনুমতি নিয়ে ১২টা ৪০ মিনিটে বের হন সাকলাইন। ১২টা ৫৬ মিনিটে ওই নারী কারা'গারে প্রবেশ করেন।

সিসিটিভিতে দেখা যায়, ডেপুটি জে'লার সাকলাইন ১২টা ৫৭ মিনিটে কা’রাগারে’র ভেতরে প্রবেশ করে ১টা ০৪ মিনিটে তুষারকে নিয়ে ওই নারীর সাথে সাক্ষাৎ করতে একটি কক্ষে নেন। ১টা ১৫ মিনিটে জেল সুপার কা’রাগার থেকে বের হয়ে যান। এরপর তুষার একটি কক্ষে প্রায় ৪৬ মিনিট একান্তে সময় কা’টায় ওই নারীর স'ঙ্গে।

এ ঘটনায় সা’জাপ্রা’'প্ত আ’সা’মির স’'ঙ্গে কা’রাগা’রে নারীর সময় কা’টানো’র ঘটনায় সিনিয়র জেল সুপার ও জে'লারকে প্র’ত্যা’হার’ করা হয়েছে। এর আগে ডেপুটি জে'লারসহ তিনজনকে প্র’ত্যা’হার করা হয়েছিল। দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ঋণ কে’লে’ঙ্কা’রি কারণে হলমা'র্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর মাহমুদ ও তার ভায়রা প্রতিষ্ঠানের জিএম তুষার ২০১২ সাল থেকে কা’রাগা’রে রয়েছেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*