‘কি করেছো দিহান, আমি আর বাঁচবো না’ বলছিলেন আনুশকা

রাজ’ধানীর কলা’বাগানের ডল’ফিন গ’লি এলা’কায় ধান’মন্ডির মাস্টা’র’মাই’ন্ড স্কুলের এক শিক্ষা’র্থী’কে ধ;ষ;র্ণে;র পর হ;ত্যা;র অ’ভি’যোগ পাও’য়া গেছে তার বয়’ফ্রেন্ড ফা’র’দিন ইফ’তে’খার দিহান ও তিন সহপা’ঠীর বি’রু;দ্ধে।

বৃহস্পতিবার রাজধা;নীর কলাবাগান এলাকায় এ ঘ;টনা ঘটে। নি;’হ;ত ওই তরুণী (১৭) ও লে;ভেলের শিক্ষার্থী ছিলেন। তার নাম আনুশ;কাহ নূর আমিন। নি;হ;ত শিক্ষার্থীর বোন জা;মাই শরী;ফ বলেন, সে স’;ম্পর্কে আমা’র চাচা;তো শ্যা;লিকা। এ বছর মা;স্টারমাইন্ড; স্কুল থেকে ও-লেভেল পরীক্ষা দেয়ার কথা ছিল। বৃহ;স্পতিবার দুপুর তি;নটার দিকে কলা;বাগানের ডলফিন গ;লিতে কোচিং করতে গেলে এ সময় তার এক বা;বী মিথ্যা প্র’;লো;’ভন দেখিয়ে একটি বা;সায় নিয়ে যায়। এ সময় ওই বাসাতে চারজন মিলে তাকে করে।

যখন প্র;চন্ড র’;ক্ত;পাত শু;রু হয় তখন অ’ভিযু’ক্ত ফার;দিন ইফ;তেখার দিহান তাকে ধানম;ন্ডির আনো;য়ার খান ম’র্ডান হাস;পাতা’লে নিয়ে যায়। পরব;র্তীতে বিকাল পাঁচটায় হাসপা;তা’লে চিকিৎসাধীন অ;বস্থায় মা;’রা যায়। ম;রদে;হ বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লের ম;র্গে রয়েছে। এ বিষয়ে আম’রা মা;মলা করেছি।

চিকিৎস;করা জানান, শি;কার আনুশ;কাহের শ;রীর থেকে অ’তি;রিক্ত; র’;ক্ত;ক্ষরণ হচ্ছিল। তার পে;টের ডান পাশে আ;ঘা;তের চি;হ্ন ছিল। পরে কলা;বাগান থা’না পু’লিশ ম;রদে;হ উ;দ্ধা;র করে ম;য়;নাত’দন্তে;র জন্য ঢাকা মেডিকেল কলে;জ ম;’র্গে পাঠিয়েছে।

তিনি বলেন, নি;হ;ত শিক্ষার্থীর মা দক্ষিণ সিটি কর;পোরেশনে চাক;রি করেন। বাবা ব্যব;সায়ী। তিন ভাই বো;নের মধ্যে সে ছিল বড়। ধান;মন্ডি ৩২ নম্বরে পরিবারের সদস্য;দের স;ঙ্গে থাক;তেন। নি;হ;ত শিক্ষার্থীর মা জানান, আমা’র মে’য়েকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। ও আমাকে যখন ফোন করে জানি;য়েছিল তখন আমি অফিসে ছিলাম।

আ;মাকে জানায়, মা আমি ক্লাসের ওয়া;র্কসিট আনতে যাচ্ছি। এই বলে গেছে। দুপুর একটার পরে একটি ছে’লে মুঠো;ফোন থেকে ফোন দিয়ে জানায়, আমা’র মে’য়ে অ;জ্ঞা;ন হয়ে গেছে। ওকে হাসপাতা’লে নিয়ে এসেছি। আপনা;রা আসেন। পরবর্তীতে গিয়ে দেখি মে’য়ের নি;থর দে;হ পড়ে আছে। ওকে হাস;পাতা’লেই আ;না হয়েছে মৃ;ত।

কলা;বাগান থা;নার ইন্সপেক্টর (অ’পারে;শন্স) ঠাকুর দাস বলেন, ওই ছা’ত্রীর বাসা রাজ;ধানীর ধানমন্ডির সোব;হানবাগে। বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে ওই ছা’ত্রী তার বন্ধুর সঙ্গে দেখা করার কথা বলে বাসা থেকে বের হন। ক;লাবাগানের ডলফিন গলিতে দিহা;নের বা;সায় যান ওই ছা’ত্রী।

দি;হানের বাসা তখন ফাঁকা ছিল। সেখানে ওই ছা’ত্রী শি;কার হওয়ার পর অ’সু;স্থ হয়ে পড়লে দিহান তার তিন বন্ধু;কে ফোন করে ডেকে আনে। পরে তারা অ’সু;স্থ ছা’ত্রীকে চি;কিৎসার জন্য ম;ডার্ণ আ;নোয়ার খান মেডিকেল কলেজ হা;সপাতা’লে নিয়ে যায়। সেখানে বি;কালে তার মৃ;ত্যু; হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*