ছাত্রীর পানির পাত্রে প্রসাব রেখে দিল তিন ছাত্র, এরপর…

টা'ঙ্গাইলের সখীপুরে শ্রেণিকক্ষে একজন মেয়ের ব্যাগে থাকা ওয়াটার পট (পানির পাত্র) চুরি করে ওই পাত্রের পানি ফেলে দিয়ে প্রসাব ভরে রাখার অ'ভিযোগে তিন শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয় থেকে ছাড়পত্র দিয়ে বের করে দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৪ জুন) বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় সি'দ্ধান্ত নিয়ে ওই তিন বখাটে ছাত্রকে ডেকে এনে তাদের হাতে ছাড়পত্র ধরিয়ে দেওয়া হয়।ওই তিন বখাটে হচ্ছে আবু তাহেরের ছেলে সাব্বির হোসেন (১৫), শ’হীদুল ইসলামের ছেলে বিপ্লব মিয়া (১৫) ও সিদ্দিক মিয়ার ছেলে ফারুক হোসেন (১৪)।

বিদ্যালয়ে কয়েকজন শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যদের স'ঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কিছুদিন আগে উপজে'লার ওই বিদ্যালয়ের (কেজিকে উচ্চবিদ্যালয়) একজন ছাত্রী সকালে শ্রেণিকক্ষে গিয়ে বেঞ্চে ব্যাগ রেখে কক্ষের বাইরে গিয়ে (ক্লাস শুরুর আগে) বান্ধবীদের স'ঙ্গে গল্প করছিলেন।

ওই সুযোগে ওই তিন বখাটে সহপাঠী শিক্ষার্থী ওই মেয়ের ব্যাগ থেকে পানির পাত্র (ওয়াটার পট) সরিয়ে নিয়ে পানি ফেলে দিয়ে প্রস্রাব ভরে আবার চুপিসারে ওই ব্যাগে ওই প্রসাব ভর্তি পানির পট রেখে আসে।প্রথম ঘণ্টা (প্রথম ক্লাস) শেষে ওই মেয়ে ব্যাগ থেকে পানি পান করতে গেলে পানিতে প্রস্রাবের গন্ধ পায়। এক পর্যায়ে বি'ষয়টি বান্ধবীদের স'ঙ্গে শেয়ার করে। পরে বান্ধবীদের নিয়ে ওই ছাত্রী প্রধান শিক্ষককের কাছে এ বি'ষয়ে বিচার চান।

প্রধান শিক্ষক পরে অন্যান্য শিক্ষকদের সহযোগিতা নিয়ে আট'জন শিক্ষার্থীকে দোষী সাব্যস্ত করেন। এরপর ওই আট'জনের মধ্য থেকে ওই তিনজনকে চিহ্নিত করা হয়।ওই উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিল্লাল হোসেন বলেন, সোমবারে বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির জরুরি এক সভায় সি'দ্ধান্তের প্রেক্ষিতে তিনজন শিক্ষার্থীকে টিসি (ছাড়পত্র) দিয়ে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেওয়া হয়।

বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি আবদুল মালেক বলেন, অ'ভিযুক্ত তিনজনের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী তাদের ছাড়পত্র দিয়ে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।উপজে'লা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মক'র্তা মফিজুল ইসলাম বলেন, শ্রেণিকক্ষে উত্ত্য'ক্তকারী বখাটে শিক্ষার্থীদের বিরু'দ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করায় ম্যানেজিং কমিটিকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*