পারভীনের প্রতিটি প্রেমের দাম ৫ লাখ থেকে ৫০ লাখ টাকা

ট্রাভেল এজেন্সিতে বিদেশগামী বিশিষ্টজন ও গ্রামীণফোনের গ্রাহকদের তথ্য চুরি করে বিভিন্ন ব্যক্তিকে ভয় দেখিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে একটি প্রতারকচক্রকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।বুধবার তেজগাঁও

বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ এ তথ্য জানান।গ্রেপ্তা’রকৃতরা হলো, চক্রের প্রধান পারভীন আক্তার নূপুর (২৮), তার বড় বোন শেফালী বেগম (৪০), মতিঝি’লের পারফে’ক্ট ট্রাভেল এজে’ন্সির কর্মচারী শামসুদ্দোহা খান ওরফে বাবু (৪০) এবং গ্রামীণফোনের কাস্টমার সার্ভিস ম্যানে’জার রুবেল মাহমু’দ অনিক (২৭)।


পুলিশ জানায়, এই চক্রের সদস্যরা বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করে তাদের ফাঁদে ফেলে ব্যক্তিগ’ত তথ্য সংগ্রহ করত। সেই তথ্য পরিবারের সদস্য’দের জানিয়ে দেওয়ার হুম’কি দিয়ে পাঁচ লা’খ থেকে ‘শুরু করে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত আদায় করত।’

টাকা দিতে অস্বীকার করলে নুপুরের অভিভাবক হিসেবে কথা বলতেন বড়বোন শেফালী। বোনের সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্কের দায়ে নারী নির্যাতনের মামলার হুমকি দেন তিনি। সম্মানের হানির ভয়ে টাকা দিতে বাধ্য হতেন অনেক ভুক্তভোগী।দৃশ্যমান কোন পেশা না থাকলওে নুপুর গুলশান এলাকার নিকেতনের একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতেন ৮০ হাজার টাকায়। আর শরীরচর্চায় মাসে ব্যয় করেন ৩০ হাজার টাকা।

ফাঁদে ফেলা ব্যক্তি সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করতেন বলে অভিযোগ গ্রামীণফোন কাস্টমার সার্ভিস সেন্টারের কর্মী রুবেল মাহমুদ অনিকের বিরুদ্ধে। আইনজীবী পরিচয় দানকারি ইসা নামের চক্রের এক সদস্য এখনো পলাতক রয়েছে।

এই চক্রটির মূল টার্গেট ছিলো উচ্চপদস্থ চাকরিজীবী, ধনাঢ্য ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি। তাদের টার্গেট করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়াই ছিলো তাদের লক্ষ্য। এদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব বয়সের লোকজনই বেশি থাকত। এখন পর্যন্ত ২০-২৫ জন এ চক্রের শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*