মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর কাছে এসএসসি পরীক্ষার্থীর খোলা চিঠি

মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী, ‘করোনার মধ্যে এসএসসি নয়’ এমন দাবি নিয়ে আমাদের কোনো উদ্দেশ্য ছিল না! কিন্তু বর্তমানে পুরো বিশ্ব করোনার তাণ্ডবে বেসামাল, যা আমাদের দেশকেও প্রভাবিত করেছে। ক্ষতিগ্রস্ত করেছে শিক্ষা, অর্থনীতি, বাণিজ্যসহ বিভিন্ন খাতকে! করোনার কারণে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ফলে আমরা ২০২১ সালের এসএসসি পরিক্ষার্থী টানা ১০ মাসের মত সময় ক্লাস করতে পারিনি। যদিও অনলাইনে ক্লাস চালু রেখেছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। তারপরেও ৫০ ভাগ শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাসের আওতায় নেই। বিভিন্ন নামি দামি প্রতিষ্ঠানও শতভাগ শিক্ষার্থীকে অনলাইন ক্লাসের আওতায় আনতে পারেনি।

সরকারিভাবে সংসদ টেলিভিশনসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ক্লাস চালালেও গুণগত মান খারাপ হওয়ায় ক্লাস করা যাচ্ছে না।গত কিছুদিন আগে ভার্চুয়াল এক সভায় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী জুন মাসে সিলেবাস কমিয়ে এসএসসি পরিক্ষা নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। শিক্ষামন্ত্রীর এমন কথায় আমরা দ্বিমত পোষণ করছি। কারণ, যদি জুন মাসে পরীক্ষা হয় তাহলে আমাদের রেজাল্ট পেতে সময় লাগবে ৩ মাসেরও বেশি এবং কলেজে ভর্তি হতে হতে ২০২১ সাল শেষ হয়ে যাবে। ফলে সৃষ্টি হবে সেশন জট এবং আমাদের শিক্ষাজীবন থেকে চলে যাবে একটি বছর। যা আমাদের ভবিষ্যৎ জীবনকে প্রভাবিত করবে।

তাই শিক্ষামন্ত্রীর কাছে আমাদের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ৬ দফা দাবি:১. করোনার ভ্যাক্সিন না আসা পর্যন্ত স্কুল খোলা যাবে না।২. করোনা চলাকালীন কোনো ধরনের পরীক্ষা (স্কুল বার্ষিক পরীক্ষা, টেস্ট পরীক্ষা ও এসএসসি পরীক্ষা) নেওয়া যাবে না।৩. আমাদের স্কুল কার্যক্রম ১০ মাস বন্ধ ছিল, তাই এই ১০ মাসের ক্ষতিপূরণ হিসেবে আমাদের এসএসসি পরীক্ষা ১০ মাস পেছাতে হবে।

৪. পরীক্ষার ১০ মাস পেছানো হলে তার জন্য সেশন জট সৃষ্টি হবে, এর ফলে আমাদের জীবন থেকে পরবর্তী ১ বছর লস। তাই আমাদের এই সেশন জট এর ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।৫. যদি উপোরোক্ত দাবি না মেনে জোরপূর্বকভাবে করোনা চলাকালীন সময়ে এসএসসি পরীক্ষা নেওয়া হয় এবং পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে যদি কেউ কভিড ১৯ পজিটিভ হয়, তাহলে সেই ছাত্রের দায়ভার সরকারের নিতে হবে।

৬. যদি এসএসসি পরীক্ষা না নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়, তাহলে আমাদের পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট এর উপর ভিত্তি করে আমাদের অটোপ্রমোশন দিতে হবে।২০২১ সালের এসএসসি পরিক্ষার্থী ৯৫ শতাংশ শিক্ষার্থীর দাবি একটাই অটোপাস চাই।২০ লক্ষ শিক্ষার্থীর পক্ষে তারেক আহম্মেদ

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*