মালয়েশিয়ায় ৮ বাংলাদেশী প্রবাসীকে খুঁজছে পুলিশ, ধরা পড়লে শাস্তি

মালয়েশিয়ায় একটি কোম্পানিতে কাজে যোগ দিতে দেশটির চিকিৎসকদের থেকে ‘ক’রো’না’র স’নদ’ কিনে প্র’তারি’ত হয়েছেন আট বাংলাদেশি। ওই আটজন এখন প’লাত’ক অবস্থায় দিন কা’টাচ্ছে’ন। মালয়েশিয়ার প্রভাবশালী গণমাধ্যম দ্য স্টার জানিয়েছে, এর পেছনে ডাক্তারদের একটি চ’ক্রের হাত রয়েছে। তারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে ভু’য়া ফলাফল তৈরি করে ৩০০ থেকে ৫০০ রিঙ্গিতে বি’ক্রি করছেন। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার দাম প্রায় ১০ হাজার টাকা।

পুলিশ ইতিমধ্যে চ’ক্রটির খোঁজ পেয়েছে। স্থানীয় এক চিকিৎসকের নাম ব্যবহার করে তারা সনদ বিক্রি করছিলেন। ওই চিকিৎসক পুলিশে অ’ভিযো’গ করার পর বাংলাদেশি এক হোস্টেল ম্যানেজারসহ স্থানীয় আরেকজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আ’টক করা হয়েছে। নিজস্ব সূত্রের বরাত দিয়ে স্টার বলছে, সেনাইয়ের একটি কোম্পানি আট বাংলাদেশিকে নিয়োগের পরিকল্পনা করছিল। এই কর্মীরা ক’রো’না’ প’জিটি’ভ কি না, সেটি নিশ্চিত হতে আউটসোর্স কোম্পানি থেকে টে’স্ট করতে বলা হয়।

এরপর বাংলাদেশিরা কোম্পানিটির এইচআরে একটি প্রাইভেট ক্লিনিকের রে’জাল্ট জমা দেন। কর্মকর্তারা ফলাফল সম্পর্কে নিশ্চিত হতে ক্লিনিকের প্রধান চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি জানান, ওই আটজনের কোনো তথ্য তার কাছে নেই! চিকিৎসকের থেকে এমন জবাব পেয়ে কর্মকর্তারা পুলিশে খবর দেন। এরপর অ’ভিযা’ন চালিয়ে দুজনকে আট’ক করা হয়।

পুলিশ এখন বাংলাদেশি কর্মীদেরও খুঁজছে। কিন্তু তারা গা ঢাকা দিয়েছেন। তাদের বি’রু’দ্ধে প্র’তা’রণা’র অ’ভিযো’গ আনা হয়েছে। প্রবাসী কর্মীদের কাছে এভাবে ভু’য়া সনদ বিক্রি করায় মালয়েশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় হ’তা’শা প্রকাশ করেছে। স্বাস্থ্য ও পরিবেশ বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান আর বিদ্যানন্তন এমন সি’ন্ডিকে’টের বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। যারা এর স’ঙ্গে জ’ড়িত, তাদের খুঁজে বের করে শা’স্তির আওতায় আনতেও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*