স্ত্রীর ‘ঘ্যানঘ্যান’ থেকে বাঁচতে ছাগলের রক্ত দিয়ে মৃত্যুর গল্প সাজিয়ে গায়েব স্বামী

দীর্ঘদিন থেকে কাজ নেই, সংসারে আ’র্থিক অ’নটন। এ নিয়ে উঠতে বসতে কথা শোনাতেন স্ত্রী। প্রতিদিনের এই অ’শান্তি থেকে মু’ক্তি পেতেই নিজের মৃ’ত্যু’র নাটক সাজিয়ে গায়েব হয়ে যান এক ব্যক্তি। এই ঘটনা ভারতের। ঘটনার বিস্তারিত সম্পর্কে জানা যায়, বিহারের ৩৭ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি স্ত্রীর অ’ত্যা’চা’র থেকে বাঁচতে ছাগলের র’ক্ত দিয়ে নিজের খু’Tন হওয়ার গল্প সাজিয়ে উত্তর প্রদেশ পালিয়ে যান।

ভারতীয় পুলিশ মোতাবেক, ৩৩ বছর বয়সী সরকারি স্কুল শিক্ষিকা কুমারি প্রতিভা তার স্বামী প্রদীপ কুমার রামকে হ’Tত্যা’ ও তার দে’হ কোথাও ফেলে দেওয়া হয়েছে এনিয়ে থানায় অ’ভিযো’গ করেছেন। টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, গত ২৯ ডিসেম্বর রাত থেকে নি’খোঁ’জ হন প্রদীপ। সকালে উঠে স্বামী যেখানে ঘুমিয়ে ছিলেন, সেখানে র’ক্ত পড়ে থাকতে দেখেন প্রতিভা। এরপর পুলিশে অ’ভি’যো’গ দায়ের করেন। অ’ভিযো’গে জানান, অ’জ্ঞা’ত পরিচয় দু’ষ্কৃতী’রা তার স্বামীকে খু’Tন করে লা’শ গা’য়েব করে দিয়েছে।

এরপরই ঘটনার তদ’ন্তে নামে পুলিশ। বিভিন্ন জায়গায় খুঁজে হয়রান হয়েও প্রদীপের মৃ’তদে’হ খুঁজে পায়নি। এর মধ্যেই বাড়ির অদূরে একটি বো’তল পাওয়া যায়। তাতে তখনও র’ক্ত লে’গে ছিল। স’ন্দেহ হয় পুলিশের। যে জায়গাটিতে র’ক্ত লেগেছিল, সেটি দেখে স’ন্দে’হ আরও জো’রা’লো হয়। জো’রদার ত’ল্লা’শি শুরু করে পুলিশ। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে উত্তরপ্রদেশের জামানিয়া থেকে শেষপর্যন্ত ওই ব্যক্তিকে গ্রে’প্তা’র করে পুলিশ। জে’রায় শেষপর্যন্ত সত্যিটা জানান প্রদীপ।

বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সংসারে অ’শা’ন্তি করতেন স্ত্রী। তাই বাজারে মাংসের দোকান থেকে ৪০ টাকা দিয়ে এক বোতল ছাগ’লের র’ক্ত কি’নে আনেন। আর তাই দিয়ে নিজের মৃ’ত্যু’র গল্প ফেঁ’দে বাড়ি থেকে পালান। তবে শেষপর্যন্ত মু’চলে’কা দিয়ে রেহাই পান প্রদীপ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*