কর নিয়ে মানুষের ভীতি ছিল, এখন দূর হয়েছে: অর্থমন্ত্রী

আগে কর নিয়ে মানুষের মধ্যে অনেক ভয়ভীতি ছিল, যা এখন অনেকটা দূর হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ কর দিতে চায়। আমর'া সব জায়গায় পৌঁছাতে পারি না। সমন্বয় করতে পারলে করের আওতা বাড়বে। এ প্রজন্ম হচ্ছে রেভিনিউ জেনারেশন।

আজ বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সেগু'নবাগিচায় রাজস্ব বোর্ডের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সেরা করদাতাদের ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে জাতীয় পর্যায়ে ১৪১ জন সেরা করদাতার মধ্য থেকে ১০ জনকে একটি করে সম্মাননাপত্র, একটি ক্রেস্ট এবং একটি করে আইডি কার্ড প্রদান করা হয়। বাকি করদাতাদের নিজ নিজ কর অঞ্চল অফিস থেকে পুরস্কার সংগ্রহ করতে বলা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, কর সংগ্রহের সিস্টেম আরও উন্নত করা দরকার। এটা করতে পারলে জনগণ করের আওতায় চলে আসবে।

তিনি বলেন, প্রতিবেশী দেশগু'লোর স'ঙ্গে তুলনায় আমা'দের কর জিডিপি অনুপাত এখনও অনেক কম। আমা'দের অন্তত ১৫ থেকে ১৭ শতাংশ কর জিডিপি হওয়া উচিত। এ জন্য রাজস্ব বোর্ডকে ডিজিটাল ব্যবস্থায় যেতে হবে। তাহলে যেসব খাত থেকে কর পাই, তা আরও বেড়ে যাব'ে। নতুন নতুন খাত বের হয়ে আসবে। দেরি না করে কর ব্যবস্থাপনা ডিজিটাল করুন। সেক্ষেত্রে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে রাজস্ব বোর্ডকে।

প্রত্যক্ষ কর বেড়েছে জানিয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রত্যক্ষ কর বেড়েছে। আমা'দের আরও বাড়াতে হবে। সেক্ষেত্রে করের হার না বাড়িয়ে আওতা বাড়াতে হবে। রেট না কমালে করের আওতা বাড়বে না। মোট কথা খাত বৃ'দ্ধি করতে হবে। সেটা করতে পারলে আমর'া লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবো।

সবাইকে কর দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নিজে কর দেবেন, অ’পরকেও কর প্রদানে উৎসাহিত করবেন। আমা'দের অনেক মেগা প্রকল্পের কাজ চলমান আছে। আরও মেগা প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। এতকিছু করার সাহস আসে করদাতাদের কাছ থেকে। এ জন্য করের আওতায় বৃ'দ্ধি করতে সবাইকে একস'ঙ্গে কাজ করতে হবে।

এ সময় করের আওতা বাড়াতে কর ব্যবস্থাপনা ডিজিটাল করার পাশাপাশি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মক'র্তাদের আরও দায়িত্ববান হওয়ার তাগিদ দেন অর্থমন্ত্রী।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হে'না মো. রহমাতুল মুনিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। অনুষ্ঠানে করদাতাদের সম্মাননাপত্র, আইডি কার্ড ও ক্রেস্ট ছাড়াও প্রথমবারের মতো উপহার হিসেবে স্যুভেনিয়র প্রদান করা হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*