কোচিং সেন্টারে আপ'ত্তিকর অবস্থায় শিক্ষক-ছাত্রী!

কোচিং সেন্টারে শিক্ষক-ছাত্রীকে আ’পত্তিকর অ’বস্থায় অবরু’'দ্ধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা। সোমবার সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থা’নার খুকনী মো’ল্লা পাড়ায় এ ঘ’টনা ঘ’টে। পরে খুকনী বহু’মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক হায়দার আলীর শা’স্তি দা’বি করে এলাকায় বি’ক্ষো'ভ মিছিল করে স্থানীয়রা। এলাকাবাসী ও পুলিশ জানান, খুকনী বহু’মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের বিএসসি শিক্ষক হায়দার আলী (৬০) সরকারি নি’র্দেশনা না মেনে দীর্ঘদিন ধ’রে কোচিং বাণিজ্য চালিয়ে আসছিলেন।

সোমবার সকাল ৯টার দিকে ছাত্র-ছাত্রীদের কোচিংয়ে পড়ানোর এক পর্যায়ে তার স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থী এক ছাত্রীকে নিয়ে পাশের রুমে যান তিনি। দীর্ঘ সময়েও বের না হওয়া স’ন্দে'হ করে অন্য শিক্ষার্থীরা। পরে ছাত্র-ছাত্রীরা উঁকি দিয়ে আ’পত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে রুমটিতে তালা লাগিয়ে দেয়। বি'ষয়টি জানাজনি হলে বিক্ষু’ব্ধ এলাকাবাসী সেখানে গিয়ে শিক্ষকের ওপর চ’ড়াও হয়। এক পর্যায়ে খুকনী বহু’মুখী উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য হাসমত আলীসহ স্থানীয় গ’ণ্যমান্যরা ওই শিক্ষক ও ছাত্রীকে উ’'দ্ধার করে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়।

এরপর এলাকাবাসী শিক্ষক হায়দার আলীকে স্কুল থেকে ব’হিষ্কার এবং এ ঘ’টনার শা’স্তির দা’বিতে বি’ক্ষো'ভ মিছিল বের করে। পরে বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের সভাপতি অনিক আহমেদ ফিরোজকে পদ'ক্ষেপ নেওয়ার আশ্বা'স দিলে তারা ফিরে আসে। শিক্ষক হায়দার আলী আগেও অনেক শিক্ষার্থীর স’'ঙ্গে অ’নৈতিক কাজ করেছেন বলে দা’বি করেন এলাকাবাসী। অনিক আহমেদ ফিরোজ জানান, ঘ’টনাটি আ’সলেই নি’ন্দনীয়। আমর'াও ঘ’টনা জেনে হ’তাশ হয়েছি।

অ’ভিযোগ ত’দন্ত করে দেখা হচ্ছে। দো’ষ প্র’মাণিত হলে শিক্ষক হায়দার আলীর বি’রু'দ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অ’ভিযুক্ত শিক্ষক হায়দার আলী স’'ঙ্গে মুঠোফোনে একাধিক যোগাযোগের চে’ষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি। এনায়েতপুর থা’নার এসআই আব্দুল লতিফ জানান, শিক্ষক হায়দার আলীর বি’রু'দ্ধে এলাকাবাসী যে অ’ভিযোগ করেছেন তার প্রাথমিকভাবে প্র’মাণ পাওয়া গেছে। বি'ষয়টি আরো ক্ষ’তিয়ে দেখে আ’ইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*