গ্রে'নেড হা'মলার দ'ণ্ডপ্রা'প্ত আ'সামি গ্রে'ফতার

রাজধানীর দিয়াবাড়ি এলাকা 'হতে ২১ আগস্ট গ্রে'নেড হা'মলা মা'মলার যাব'জ্জীবন দ'ণ্ডপ্রা'প্ত আ'সামিকে গ্রে'ফতার করেছে র‍্যাব'।

ম'ঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) র‍্যাব' সদর দফতর থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এসএমএসে এই তথ্য জানানো হয়। তবে তার নাম ঠিকানা কিছুই জানা যায়নি। র‍্যাব' জানিয়েছে বেলা সাড়ে ১১টায় রাজধানীর কাওরান বাজারে বাহিনীর মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে।

র‌্যাব' সদর দফতরের সহকারী পরিচালক ইমর'ান হোসাইন ম'ঙ্গলবার গণমাধ্যমকে এই খবর নিশ্চিত করলেও আ'সামির নাম বলেননি। তিনি বলেন, র‌্যাব'ের মহাপরিচালক এই বি'ষয়ে কারওয়ান বাজারে র‌্যাব'ের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত বলবেন।

২০০৪ সালের ২১শে আগস্ট দেশে বীভৎস রাজনৈতিক হ'ত্যাযজ্ঞের ঘটনা ঘটে। এই দিনে ব'ঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের ‘স'ন্ত্রাস, জ'ঙ্গিবাদ ও দুর্নীতিবিরোধী’ সমাবেশে মুহূর্মুহ গ্রে'নেড হা'মলায় হয়।

তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হ'ত্যার উদ্দেশ্যে পরিচালিত এই হা'মলায় সেদিন প্রয়াত রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমানের সহধ'র্মিণী ও মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী বেগম আইভি রহমানসহ ২৪ জন নি'হত হয়েছিলেন। শুধু গ্রে'নেড হা'মলাই নয়, সেদিন তাদের প্রধান টার্গেটে থাকা ব'ঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে হ'ত্যার উদ্দেশ্যে তার গাড়ি লক্ষ্য করেও চালানো হয় ছয় রাউন্ড গু'লি। শেখ হাসিনা অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেও আ'হত হন। তার শ্রবণশক্তি ক্ষ'তিগ্রস্ত হয়।

সেদিনের গ্রে'নেড হা'মলার পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নের পেছনে ছিলেন প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ, দেশের একাধিক গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষ কর্মক'র্তাসহ কয়েকজন শীর্ষ জ'ঙ্গি।

২০১৮ সালের ১০ অক্টোবর গ্রে'নেড হা'মলার ঘটনায় হ'ত্যা ও বি'স্ফো'রক দ্রব্য আইনের দুই মা'মলার রায় ঘোষণা করা হয়। হ'ত্যা মা'মলায় ১৯ জনকে ফাঁ'সির দ'ণ্ড, ১৯ জনকে যাব'জ্জীবন কারা'দ'ণ্ড এবং ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারা'দ'ণ্ড দেয়া হয়। আর বি'স্ফো'রক দ্রব্য আইনের মা'মলায় ১৯ জনকে ফাঁ'সি এবং ১৯ জনকে যাব'জ্জীবন কারা'দ'ণ্ড দেয়া হয়। এই ৩৮ জনকে বি'স্ফো'রক দ্রব্য আইনের অন্য ধা'রায় ২০ বছর করে সশ্রম কারা'দ'ণ্ড দেয়া হয়েছে। দুই মা'মলায় আলাদাভাবে সাজা দেয়া হলেও তা একযোগে কার্যকর হবে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*