জামাইকে হারিয়ে কাউন্সিলর হলেন শ্বশুর

আখাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা যতটা না ভোটারদের নজর কাড়তে পেরেছিল, তার চেয়ে বেশি নজর কেড়েছিল কাউন্সিলর পদে শ্বশুর-জামাইয়ের প্রতিদ্বন্দ্বিতা। তাদের এ প্রতিদ্বন্দ্বিতার রেশারেশিতে বাবাকে না স্বামীকে ভোট দেবেন, তা নিয়ে দোটানায় পড়েন মেয়ে লিজা।

সব শেষে একুল ওকুল হারানোর ভয়ে ভোটই দেননি তিনি। এ দিকে বিকেলে ভোট গণনা শেষে জানা যায়, মেয়ের জামাতাকে পরাজিত করে কাউন্সিলর হয়েছেন শ্বশুর।পৌরসভার আট' নম্বর ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে পাঞ্জাবি প্রতীক নিয়ে লড়েছিলেন শ্বশুর বাবুল মিয়া। তার অন্যতম প্রতিপক্ষ জামাতা হু’মায়ুন কবির পেয়েছিলেন পানির বোতল প্রতীক। এর পরই থেকে তাদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা আরো জমে ওঠে।

রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণের পর গণনা শেষে এক হাজার ৪৩৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন শ্বশুর বাবুল মিয়া। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জামাই হু’মায়ুন কবির পেয়েছেন ৮৪৭ ভোট। বি'ষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রিজাইডিং অফিসার কামাল আহমেদ খান।

বিজয়ী হওয়ার পর শ্বশুর বাবুল মিয়া জানান, আমি আমা'র মেয়ের জামাইকে নিজের ছেলের মতো দেখেছি, এখনো তাই দেখবো। আমি তাকে কলিজার টুকরো’ মনে করেছি, এখনো তাই মনে করি। এতে আমা'দের মধ্যে সম্পর্ক নষ্ট হবে না। জামাই তো জামাই-ই। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমা'র মেয়ে ভোট কেন্দ্রেই আসেনি। তাই নিজের বাবা বা স্বামী কাউকেই ভোট দেয়নি সে। উট প্রতীক নিয়ে এ ওয়ার্ডের আরেক প্রার্থী মো. দেওয়ান সাদ্দাম পেয়েছেন ৬৮ ভোট।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*