মায়ের কাছে ঘরে বসেই হাফেজ হয়ে গের ৮ বছরের শিশু মুয়াজ

আবরারুল হক মুয়াজ। বয়স মাত্র আট' বছর পেরিয়েছে। এ বয়সেই পুরো কোর’আন মুখ’স্ত করে বিস্ময় জাগিয়েছে। পরিবারের সবাই তাকে নিয়ে আন’ন্দিত। মুয়াজ কিশোরগ’ঞ্জ জে'লার ইটনা থানাধীন ছিলনী গ্রামের হাফেজ মাওলা মা’হবুবুর রহমানের ছেলে।

হাফেজ মুয়াজ বর্তমানে কি’শোর’গঞ্জ শহরের উকিলপাড়ায় অবস্থিত মা'দরাসায়ে দ্বী”নিয়্যাহর ছাত্র। তার বাবা হাফেজ মাওলানা মা’হবুবুর রহমান আওয়ার ইসলামকে জানান, মুয়াজকে নিয়ে একদিন ঐতি’হাসিক শ’হীদী মসজিদ প্রা'ঙ্গনে প্রতিবছর অনু’ষ্ঠিতব্য হিফজুল

কোরআন প্রতিযোগিতায় যাই। মুয়াজ সেখানে ছোট ছোট বাচ্চাদের কোরআন তেলাওয়াত তন্ময় হয়ে শোনেন। বাসায় এসে বাবা-মা কে খুব দ্রু”তই সে হাফেজ হবে বলে আশ্বস্ত করেন। পবিত্র কো’রআনুল কারীম হেফজ

শুরু করার কিছুদিন পরেই বাংলাদেশে করো’না ভাই’রাসের প্রকো'প বেড়ে যায়। কিন্তু থাকেনি মুয়াজ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার সময়টাতে বাসায় তার মায়ে’র কাছে পড়তে থাকে কুরআনুল কা’রীম। তার রত্ন’গ'র্ভা মা একজন

হাফেজা ও আলেমা। এভাবেই সে আজ হাফেজ হয়ে আমা'দের গর্বিত করে। তিনি আ’রও বলেন, মুয়াজের হাফেজ হওয়ার পিছনে তার মায়ের অ’সামান্য অবদান রয়েছে। তার মা একজন তাহা’জ্জুদ গু'জারি, তার মা

মুয়াজকে কোলে নিয়ে নিয়মিত কো’রআন পড়তেন। মুয়াজ তন্ময় হয়ে শুনত। মুয়াজের অল্প বয়সে হাফেজ হওয়া নিয়ে আনন্দিত ছিলনী গ্রা’মবাসীও। হাওরের কাঁদা মাটিতে

জন্ম নেয়া মুয়াজ গ্রামের গৌরব এনেছে বলে মন্তব্য করেন গ্রামের বাসিন্দারা। একজন আদ’র্শবান হাফেজ হিসেবে যেন মুয়াজ সর্বদা দ্বী’নের খেতমত করতে পারে এ জন্য মুয়াজের পরিবারের পক্ষ থেকে দেশবাসীর কাছে দোয়া চাও’য়া হয়েছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*