সিরিয়ায় সীমা লঙ্ঘন করলে ইসরাইলকে দাঁতভাঙা জবাব দেব!

সিরিয়ায় ইসরাইল যদি ইরানের রেডলাইন অতিক্রম করে তা হলে তাকে সমুচিত জবাব দেওয়া হবে বলে হুশিয়ার করেছে তেহরান।রাশিয়ার বার্তা সংস্থা স্পুৎনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন ইরানের পার্লামেন্ট স্পিকারের বিশেষ সহকারী আলী আসগার খাজি।তিনি বলেন, সিরিয়া সরকারের আনুষ্ঠানিক আবেদনে সাড়া দিয়ে দেশটিতে সামরিক উপদেষ্টা পাঠিয়েছে তার দেশ। সম্প্রতি দামেস্কের পক্ষ থেকে সেনা প্রত্যাহারের কোনো আবেদন পায়নি তেহরান। খবর স্পুৎনিকের।

খাজি বলেন, সিরিয়ার সরকার যতদিন চাইবে, ততদিন সে দেশে ইরানের সামরিক উপস্থিতি বজায় থাকবে। তিনি বলেন, সেসব দেশকে সিরিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে হবে, যেসব দেশ দামেস্কের অনুমতি ছাড়া দেশটিতে দখলদারিত্ব বজায় রেখেছে।সিরিয়ায় মোতায়েন হিজবুল্লাহ ও ইরানি সৈন্যদের অবস্থানে ইসরাইলের একের পর এক হামলা সম্পর্কে খাজি বলেন,

আইএসসহ উগ্র জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য সিরিয়ায় আছেন ইরানের সেনারা।ইসরাইল যদি বেশি বাড়াবাড়ি করে তা হলে তাকে সমুচিত জবাব দেবে ইরান, যা নিয়ে তেলআবিবকে পরে অনুতাপ করবে।মাহফিলে ওয়াজ করছেন এক বক্তা। বয়ানের মাঝে শ্রোতাদের মনে সন্দেহ জাগে তার পরিচয় নিয়ে। পরে গণপি’টুনির

শি’কার হয়ে এলাকা ছাড়তে হয় তাকে।শুক্রবার (১২ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টার দিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার এল্লারচর ইউনিয়নের বালিথা এলাকায় এ কাণ্ড ঘটে। সোশ্যাল মিডিয়ায় এর একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়।জানা যায়, যে বক্তা ওয়াজে আসার কথা ছিল তিনি ওই এলাকায় পরিচিত। কিন্তু আরেকজন মঞ্চে উঠে বয়ান করতে থাকলে শ্রোতাদের মনে সন্দেহের দানা বাঁধে। একপর্যায়ে মঞ্চে থাকা একজন স্থানীয় গণমান্য ব্যক্তি সরাসরি তাকে জিজ্ঞাসা করেন। পরে ধরা পড়ে যান ওই নকল বক্তা।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. শামছুর রহমান রোববার সন্ধ্যায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান, সালমা বেগম নামে এক নারী ওই মাহফিলের আয়োজন করেছিলেন। সেখানে ঢাকা থেকে মাওলানা আবুল কালাম আজাদ নামে এক বক্তা আসার কথা ছিল। কিন্তু এ নাম ধারণ করে অন্য একজন এসে প্রধান অতিথির ওয়াজ শুরু করেন।

বয়ানের মাঝে শ্রোতাদের মনে সন্দেহ জাগলে তাকে থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। একপর্যায়ে তার মুখের রুমাল টান দিলে দেখা যায় তার দাড়ি নেই!বিষয়টি বুঝতে পেরে স্টেজেই কথিত বক্তাকে মারপিট শুরু করেন জনতা। পরে পুলিশের সহায়তায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এলাকা ছাড়া করা হয় তাকে।

জানা গেছে, নকল ওই বক্তা এফডিসির একজন ভিডিও এডিটর ও স্ক্রিপ্ট রাইটার। তবে তার নাম-পরিচয় সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি। ওই মাহফিলে সিনেমা জগতের খলনায়ক আমির সিরাজী ও নায়ক মেহেদী উপস্থিত ছিলেন।ঘটনার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক সমালোচনা সৃষ্টি হয়। ক্ষোভ জানিয়েছেন আলেমরাও। ওয়াজ মাহফিলে কাউকে দাওয়াত দেয়ার আগে তার সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজ নেয়ার কথা বলছেন তারা।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*