মানিকগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রলীগ নেতা নিহত

মানিকগঞ্জের সিংগাইর ডিগ্রি কলেজের ভিপি ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন মিরুকে (২৫) কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার (১ মার্চ) গভীর রাতে উপজেলা পরিষদ চত্বর সংলগ্ন বিএডিসির গোডাউনের উত্তর পাশের সড়কে তার ওপর হামলা করা হয়। এরপর মঙ্গলবার (২ মার্চ) দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে ঢাকাস্থ পঙ্গু হাসপাতালে মিরুর মৃত্যু হয়।

নিহত ভিপি মিরু পৌর এলাকার আজিমপুর রঙের বাজার মহল্লার আ. কাদের কসাইয়ের পুত্র। তিনি আঙ্গারিয়া মহল্লার হাজী আক্কাছ খানের বাসায় বাবা-মাকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন। ৫ ভাই-বোনের মধ্যে মিরু সবার ছোট। ২০১৬ সালে সিংগাইর ডিগ্রি কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের প্যানেল থেকে ভিপি নির্বাচিত হন।

মিরুর পরিবারের দাবি, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন আঙ্গুর মোল্লা (৩৫) তার লোকজন নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালিয়ে এ নৃশংস হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে। অভিযুক্ত আঙ্গুর পৌর এলাকার আজিমপুর মহল্লার আব্দুর রাজ্জাক ওরফে ধোনাই মোল্লার পুত্র।

জানা গেছে, স্থানীয় সংসদ সদস্য কন্ঠশিল্পী মমতাজ বেগমের নিজ বাড়ি উপজেলার জয়মন্টপ ইউনিয়নের পূর্ব ভাকুম গ্রামের বাউল কমপ্লেক্সের গানের অনুষ্ঠান শেষে সিংগাইর সদরের বাসায় ফিরছিলেন মিরু। রাত ১ টার দিকে মিরু জনৈক আলমাছকে সঙ্গে নিয়ে পৃথক মোটর সাইকেলে উপজেলা চত্বর সংলগ্ন চৌরাস্তায় পৌছালে দু’দিক থেকে সিএনজি দিয়ে বেড়িকেড দিয়ে তার ওপর হামলা করা হয়। এ সময় আলমাছ দৌড়ে পালিয়ে গেলেও ৫-৬ জন হামলাকারী ধারালো অস্ত্র দিয়ে মিরুকে কুপিয়ে ও হাত-পায়ের রগ কেটে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

খবর পেয়ে থানা পুলিশ মুমূর্ষ অবস্থায় মিরুকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। এরপর চিকিৎসাধীন অবস্থায় পঙ্গু হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

এদিকে মিরুর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক ইন্দ্রনীল দেব শর্মা রনি স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও শাস্তি দাবি করা হয়েছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*