কোনো দাম্পত্য সম্প’র্কের ক্ষেত্রে যৌ’নতা একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হতে পারে। গবে’ষণায় দেখা গেছে, বিবা’হিত লোকরা তাদের যৌ’নজীবন নিয়ে সু’খী হলে তারা তাদের দাম্পত্য সম্প’র্ক নিয়েও সু’খী হন।

কিন্তু কর্মজীবনের ব্যস্ততা এবং ব্যক্তিগত শিডিউল মিলাতে না পারার কারণে অনেকেই দাম্পত্য সম্প’র্কে যৌ’নজীবন নিয়ে হতাশায় ভোগেন। তবে যারা একটি স্বা’স্থ্যকর, সক্রিয় যৌ’ন জীবন যাপন করতে স’ক্ষম হন তারা কোনো জাদুকর-জাদুকরী নন। বিজ্ঞানসম্মত কারণেই তারা এমন স্বা’স্থ্যকর এবং সক্রিয় যৌ’ন জীবন যাপনে স’ক্ষম হন। যারা নিয়মিত যৌ’নতা উপভোগ করেন গবে’ষণায় তাদের জীবনের ৬টি বিজ্ঞানসম্মত গো’পন বি’ষয় বেরিয়ে এসেছে :

১. যারা বেশি স’হবাস করেন তারা অনেক বেশি স্বচ্ছন্দ। কারো ব্যক্তিত্ব যৌ’নতাসহ তার জীবনের প্রতিটি দিককেই প্রভাবিত করে। জার্নাল অফ রিসার্চ ইন পার্সোনালিটিতে প্রকাশিত একটি গবে’ষণায় দেখা গেছে, যেসব নববিবা’হিত দম্পতির না’রী সদস্যটি তার স্বা’মীর স’ঙ্গে সহজেই একমত পোষণ করেন অথবা অপরকে সন্তুষ্ট করার মতো প্রবণতাসম্পন্ন হন সেসব দম্পতি অন্য আর যে কোনো দম্পতির চেয়ে অনেক বেশি পরিমাণে যৌ’নতা উপভোগ করেন। গবে’ষণায় ব্যক্তিত্বের ৫টি বড় বৈশিষ্ট্যের ও’পর নজর দেওয়া হয়- সুবুদ্ধি, নমনীয়তা, অকপটতা, আবেগময়তা ও বহির্মুখীনতা। গবে’ষণায় আরো দেখা যায়, বেশির ভাগ সময় পুরু’ষরাই প্রথমে যৌ’নতার উদ্যোগ নিলেও না’রীরাই চূড়ান্তভাবে নির্ধারণ করেন তারা যৌ’নতায় লি’প্ত হবেন কি হবেন না।

২. পর্যা’প্ত পরিমাণে ঘুমান ছোট্ট একটি গবে’ষণায় দেখা গেছে, সামান্য কয়েক ঘণ্টা বেশি ঘুমানোর ফলে কলেজ-ব’য়সী না’রীদের মধ্যে উচ্চ যৌ’নাকাঙ্ক্ষা তৈরি হয়।

৩. যৌ’নমি’লনের সময় তারা ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ কথাটি বলেন আবেগগত ঘনিষ্ঠতা সত্যিকার অর্থেই শা’রীরিক ঘনিষ্ঠতাকেও উসকে দেয়। জার্নাল অফ সে’ক্স রিসার্চে প্রকাশিত একটি গবে’ষণায় দেখা গেছে, যৌ’নজীবনে সন্তুষ্ট পুরষদের ৭৫% আর সন্তুষ্ট না’রীদের ৭৪% বলেছেন তাদের স’ঙ্গী বা স’ঙ্গিনী যৌ’নমি’লনের সময় ‘আমি তোমাকে ভালোবাসি’ কথাটি বলেছেন। একই না’রী-পুরু’ষরা এও বলেছেন, খোশমেজাজ এবং যৌ’ন উ’ত্তেজক আলাপ-আলোচনাও যৌ’ন সন্তুষ্টি অর্জনের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

৪. পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালান গবে’ষণায় আরো দেখা গেছে, যৌ’নমি’লনের ক্ষেত্রে নতুন নতুন পদ্ধতি অবলম্বনের মাধ্যমে দম্পতিরা যৌ’নতাকে আরো উপভোগ্য করে তোলেন। এ ক্ষেত্রে তারা বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষাও চালান। আর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাতে গিয়ে কামসূত্রের দ্বারস্থ হন তারা।

৫. নিয়মিত শ’রীরচর্চা করেন নিয়মিত শ’রীরচর্চা করলে যৌ’নমি’লনের সময় ইতিবাচক ফল দেয়। গবে’ষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত শা’রীরিক তৎপরতা যৌ’ন আকাঙ্ক্ষা বাড়ায়। বিশেষকরে পুরু’ষদের ক্ষেত্রে কথাটি বেশি সত্য। ২০১৫ সালের এক গবে’ষণায় দেখা গেছে, যে পুরু’ষরা বেশি শ’রীরচর্চা করেন তাদের লি’ঙ্গোত্থানে কোনো স’মস্যা হয় না।

৬. দাম্পত্য সম্প’র্কের দায়িত্ব হিসেবেই শুধু যৌ’নমি’লন করেন না যৌ’নতা মূ’লত আ’নন্দদায়ক বা উপভোগ্য তৎপরতা হিসেবেই বিবেচিত হওয়া উচিত। এটিকে শুধু দাম্পত্য সম্প’র্কের একটি গতানুগতিক দায়িত্ব হিসেবে গণ্য করা ঠিক না। কার্নেগি মেলন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন, যখন দম্পতিরা যৌ’নতাকে দৈনন্দিন একটি রুটিনে পরিণত করেন তখন তারা একে নিত্যদিনের গৃহস্থালি কাজের মতোই বিবেচনা করেন। যার ফলে একটা সময়ে গিয়ে তারা যৌ’নতার আ’গ্রহ হরিয়ে ফে’লেন।

সুতরাং যৌ’নতাকে উপভোগ্য করে তুলতে হলে একে শুধু একটি দায়িত্ব হিসেবে বিবেচনা না করে বরং আকাঙ্ক্ষাকে প্রধান্য দিতে হবে। যাতে একঘেয়েমি ধরে না যায় বা বির’ক্তি উৎপাদিত না হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here