শা’রীরিক সম্প’র্কের বিকল্প ফোন মি’লন এখন জলভাত। ফোন মি’লন হয়তো বর্তমান যুগে কারও অজানা নয়। বর্তমান তরুণ প্রজ’ন্মের যারা সে’ক্সুয়াল রিলেশনে আ’গ্রহী বা অভ্যস্ত তারা প্রায়ই তাদের দু’জনের চা’হিদা মেটানোর জন্য ফোন মি’লন করে থাকেন। এছাড়া লং ডিস্টেন্স রিলেশনেও ফোন মি’লন বেশ প্রয়োজনীয়। স’ঙ্গিনীর মুখ থেকে উত্তেজনক কথা শুনে যেকোন ছেলেই কিছুটা হলেও ‘টার্ন অন’ হয়ে যায়। এটা একটা স্বাভাবিক ব্যাপার। তাই নিম্নে ফোনমি’লনের কিছু দিক তুলে ধরা হল৷

ফোনের কিছু দিক:

ফোন কথার জন্য এমন একটা সময় বেছে নেওয়া উচিৎ, যখন কেউ বির’ক্ত করবে না। নিরবিচ্ছিন্নভাবে দু’জন দুইজনকে সময় দিতে পারবেন৷ মজা দিতে পারবেন।

সুন্দর কোন মুহূর্ত ভেবে নিতে পারেন, কল্পনা করে নিতে পারেন কোন জায়গা যেখানে একটা পরিপূর্ণ একটি সে’ক্স আপনি করতে পারেন। সে’ক্স পজিশনগুলো বর্ণনা করুন একে অন্যের কাছে। অনেকেই ইমাজিনেটিভ মি’লন অনেক বেশি টার্ন অন হয়ে পরে।

মাস্টারবেশন এর মাধ্যমে ফোন মি’লন বেশ জমে উঠে। অনেকেই নেকেড হয়ে ফোন মি’লন করতে বেশ ভালবাসে। ছেলেরা সাধারণত তার গার্লফ্রেন্ড নেকেড হয়ে বিভিন্ন যৌ’ন ক্রীড়া করছে এটা ভেবে অদ্ভুত মজা পায়। মেয়েদের ‘মোনিং’ তাদের জন্যে একটি ভ’য়াবহ ‘টার্নিং অন’ ব্যাপার। অন্যদিকে ছেলেদের মাস্টারবেশনের কথা শুনেও মেয়েরাও উ’ত্তেজিত হয়ে পড়ে। যদিও অনেক ছেলেই সেটা জানে না।

অনেকেই ফোন মি’লনের সময় অনেক ‘ডার্টি টক’ শুনতেও বলতে ভালবাসে। এটা দু’জনের মাঝে ভাল আন্ডারস্ট্যান্ডিং থাকলে ফোন মি’লনকে অনেক জমিয়ে দিতে পারে। কিন্তু, নতুন রিলেশনের শুরুতে দু’জন দুইজনকে বুঝে নেওয়ার পরেই এই ব্যাপারটি শুরু করা উচিৎ।

ফোন মি’লনের সময় নকল ‘মোনিং’ না করাই ভাল। এতে সম্প’র্কের বিশ্বাস ন’ষ্ট হয়। যদি ফোন সে’ক্সে স্বচ্ছন্দ্য না হন, বা ব্যাপারটা কোন দিক থেকে আজব লাগে, তবে আপনার স’ঙ্গীকে বুঝিয়ে বলুন আপনার স’মস্যা গুলো৷ দুইজন মিলে কোন সমাধানে আসার চেষ্টা করুন।

যদি কমিটেড রিলেশন হয়ে থাকে, তবে কিছু ভালবাসাময় কথা ফোন মি’লনের ক্ষেত্রে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এবং সম্প’র্ককে শ’ক্ত করতে বেশ সাহায্য করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here